1. abdulla914559@gmail.com : Abdullah Al Mamun : Abdullah Al Mamun
  2. info@vorerjanala.com : admin : মেহেদী হাসান রিয়াদ
  3. parvessarker122@gmail.com : Md Parves : Md Parves
  4. anarul.roby@gmail.com : সহকারী ডেস্ক :
  5. i.am.saiful600@gmail.com : Saiful Islam : Saiful Islam
  6. sailorinfotech@gmail.com : N H Nahid : N H Nahid
  7. nu356548@gmail.com : Nasiruddin Liton : Nasiruddin Liton
  8. billaldebidwar@gmail.com : MD Billal Hossain : MD Billal Hossain
  9. rustom.ali.ml@gmail.com : Rustom Ali : Rustom Ali
  10. cricket.sajib@gmail.com : Md. Sazib Mandal : Md. Sazib Mandal
  11. subrotostudio35@gmail.com : Subroto Sorkar : Subroto Sorkar
কম্বোডিয়ায় মহামারীর কারণে পুনরায় হোটেল খুলতে মালিকদের ভয় » ভোরের জানালা ডট কম
সর্বশেষ
বাঘায় ছাত্রলীগ নেতার মদদে আবাদি জমিতে পুকুর খননের উৎসব দেবীদ্বার’র বড় আলমপুরে মাদকের বিরুদ্ধে মানববন্ধন ও প্রতিবাদ দেবীদ্বারে জনশুমারি ও গৃহগণনা- ২০২২’ বাস্তবায়নে উপজেলা ‘জরিপ কমিটি’র সভা অনুষ্ঠিত দেবীদ্বারে বাংলালিংক টাওয়ার থেকে পড়ে টেকনেশিয়ান’র মৃত্যু মাদক কারবারিদের আতংকের আরেক নাম কুমিল্লা ডিএনসি ও টাস্কফোর্স! কুমিল্লা জেলায় আবারও শ্রেষ্ঠ এসআই পুরস্কার পেলেন নাজমুল হাসান কুমিল্লার মুরাদনগরে ওয়ালটন ফ্রিজ কিনে ইমাম পেলো ১০ লক্ষ টাকার পুরস্কার অস্থিরতা কমাতে গুলি করার আদেশ জারি শ্রীলঙ্কায় ২০২৫ সালের মধ্যে মঙ্গোলিয়ার প্রথম তেল শোধনাগার শেষ করার আশা

আজ

  • আজ শনিবার, ২১শে মে, ২০২২ ইং
  • ৭ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ (গ্রীষ্মকাল)
  • ১৯শে শাওয়াল, ১৪৪৩ হিজরী
  • এখন সময়, দুপুর ২:১৩

কম্বোডিয়ায় মহামারীর কারণে পুনরায় হোটেল খুলতে মালিকদের ভয়

  • প্রকাশের সময়: শুক্রবার, ১৪ জানুয়ারী, ২০২২

কম্বোডিয়ার রাজকীয় সরকার পর্যটন খাত পুনরায় চালু করার ঘোষণা দেয়ার পরেও, কিছু হোটেল মালিক এখনও তাদের হোটেল সংস্কারে অর্থ ব্যয় করতে অনিচ্ছুক কারণ তারা মহামারীর কারণে আবার বন্ধ হয়ে যাওয়ার আশঙ্কা করছে।
দেশটিতে কোভিড এর সংক্রমণ ও লক্ষণগুলি এখনও অদৃশ্য হয়নি। সূত্র: A24 News Agency

বিশেষ করে যেহেতু তারা দীর্ঘ ক্ষতির সম্মুখীন হয়েছে। মহামারী চলাকালীন সময়ে নি¤œ আয়ের কারণে তারা ব্যাংক ঋণের জন্য আবেন করে, যা তারা এখন পরিশোধ করতে অক্ষম। মহামারীর সাথে স্থানীয় জনগণের মানিয়ে নেয়া এবং সুরক্ষা ব্যবস্থা মেনে চলার পাশাপাশি সরকার কর্তৃক বেশ কয়েকটি উদ্যোগ নেয়া হয়েছে এ বিপর্র্যয় কাটয়ে উঠার জন্য।

মিঃ ক্রিশ্চিয়ান ডি বোয়ার, জয়া হাউস রিভার পার্কের ব্যবস্থাপনা পরিচালক হিসেবে কাজ করছেন। তিনি জানান, “আমরা অসম্ভব খুশি যে কম্বোডিয়া তার সীমানা আবার খুলে দিয়েছে এবং তারা এখনই বিস্ময় রাজ্য এবং র্শনীয় দৃশ্য খেতে তুলনামূলকভাবে সহজ করেছে এবং আমি আশা করছি আগামী কয়েক সপ্তাহ এবং মাসগুলিতে পর্যটক আগমনের একটি নাটকীয় বৃদ্ধি আমরা দেখতে পাব।

একই সঙ্গে, ভবিষ্যতের জন্য আমার উদ্বেগের বিষয় হল বিশ্বের অন্যান্য অংশে কোভিডের নতুন বৃদ্ধি এবং এর ফলে কম্বোডিয়ায় পর্যটক আগমনের পরিমাণ হ্রাস পাবে। তাই আমাদের দেখতে হবে কিভাবে ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা করতে হবে এবং এটি আমাদের এবং অন্যান্য হোটেলের জন্য কীভাবে কাজ করবে।”

তবে অন্যান্য রক্ষণাবেক্ষণের পরে অভ্যন্তরীণ পর্যটন পুনরায় শুরু হওয়া সত্ত্বেও হোটেল এবং রিসোর্টের মালিকরা বিশ্বাস করেন যে বিদেশী পর্যটকদের জন্য দেশটি ভ্রমণে আসতে অপেক্ষা করাই ভাল। ২০১৯ সালে পর্যটন ব্যবসায়ীদের যে অবস্থা ছিল তার অন্তত ৭০ ভাগ পুনরায় ফিরে না আসা পর্যন্ত এবং তাদের ব্যবসায়িক স্থানগুলিকে আরও উন্নত করার জন্য যে খরচ রকার তা না পাওয়া পর্যন্ত তারা বিশেী পর্যটকদের স্বাগত জানাতে পারছেন না।

আঙ্কোর গ্রামীণ বুটিক রিসোর্টের মালিক মিসেস সোকুন আং বলেছেন, ”আমি মনে করি না যে আমাদের বসে বসে অপেক্ষা করতে হবে, যেমন সামদেচ হুন সেন বলেছেন, আমাদের কোভিড -১৯ এর সাথে বাঁচতে শিখতে হবে, তবে আরও গুরুত্বপূর্ণ হলো, লোকেরা কি এই মারাত্মক রোগের সাথে বেঁচে াকার সাে সাথে খাপ খাইয়ে নিতে পারবে?”

মিসেস আং আরও জানান, ”আমি মনে করি, এটি এখনও একটি প্রভাব ফেলে কারণ লোকেরা এখনও ভয় বোধ করছে। প্রথমত, আমাদের এবং গ্রাহকের মধ্যে ভয়, দ্বিতীয়ত, এমনকি কর্মীদের মধ্যে ভয় কাজ করছে। একজন উদ্যোক্তা হিসাবে, আমি বলতে পারি যে সিম রিপ জাতীয় এবং আন্তর্জাতিক পর্যটকদের স্বাগত জানাতে প্রস্তুত। উদ্যোক্তারা তাদের হোটেল খোলার সেরা দিনের জন্য অপেক্ষা করছেন।

মি বিশ্বাস করি যে আমাদের সুরক্ষা দেয়ার অনেক অভিজ্ঞতা আছে এবং আমাদের সাথে যোগদানের জন্য আমরা যে কর্মীদের নিয়োগ করব তারাও এই মারাত্মক রোগ থেকে নিজেদের রক্ষা করার পাশাপাশি জাতীয় ও আন্তর্জাতিক অতিথিদের সেরা সেবা দেয়ার প্রশিক্ষণ নিয়েছে। সিম রিপ পর্যটনের জন্য একটি চমৎকার প্রদেশ এবং এই প্রদেশের জনগণের জন্য পর্যটন সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ।

সুতরাং, আমরা যদি আমাদের ক্রেতাদের রক্ষা করতে না পারি, আমরা কখনও আগের মতো ভালো অবস্থায় ফিরে যেতে পারব না।” তবে মহামারীর জন্য কোন ক্ষতিপূরণ পেলেও তাদের মধ্যে অনেকে মনে করেন যে লকডাউনের অবস্থার কারণে আগের জায়গায় ফিরে যাওয়ার সম্ভাবনা এখন পর্যন্ত প্রায় অসম্ভব। উল্লেখ্য যে কম্বোডিয়া একটি বিপুল সংখ্যক পর্যটক উৎপাদনকারী দেশ।

সবার সাথে শেয়ার করুন

অন্যান্য সংবাদ পড়ুন

Channel Dhaka

  • এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি।
  • © সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার ‘ভোরের জানালা ডট কম’ কর্তৃক সংরক্ষিত।
সাইট ডিজাইন এন্ড ডেভেলপ মেহেদী হাসান রিয়াদ - 01760-955268
error: এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।