1. abdulla914559@gmail.com : Abdullah Al Mamun : Abdullah Al Mamun
  2. info@vorerjanala.com : admin : মেহেদী হাসান রিয়াদ
  3. parvessarker122@gmail.com : Md Parves : Md Parves
  4. anarul.roby@gmail.com : সহকারী ডেস্ক :
  5. i.am.saiful600@gmail.com : Saiful Islam : Saiful Islam
  6. sailorinfotech@gmail.com : N H Nahid : N H Nahid
  7. nu356548@gmail.com : Nasiruddin Liton : Nasiruddin Liton
  8. billaldebidwar@gmail.com : MD Billal Hossain : MD Billal Hossain
  9. rustom.ali.ml@gmail.com : Rustom Ali : Rustom Ali
  10. cricket.sajib@gmail.com : Md. Sazib Mandal : Md. Sazib Mandal
  11. journalistsojibakbor01713@gmail.com : Sojib Akbor : Sojib Akbor
  12. subrotostudio35@gmail.com : Subroto Sorkar : Subroto Sorkar
আগামী বুধবার থেকেই রাজশাহীতে করোনাভাইরাস সংক্রমিত কোভিড-১৯ শনাক্তকরণ পরীক্ষা শুরু » ভোরের জানালা ডট কম
সর্বশেষ

আজ

  • আজ বুধবার, ১০ই আগস্ট, ২০২২ ইং
  • ২৫শে শ্রাবণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ (বর্ষাকাল)
  • ১১ই মুহররম, ১৪৪৪ হিজরী
  • এখন সময়, রাত ২:২৬

আগামী বুধবার থেকেই রাজশাহীতে করোনাভাইরাস সংক্রমিত কোভিড-১৯ শনাক্তকরণ পরীক্ষা শুরু

  • প্রকাশের সময়: রবিবার, ২৯ মার্চ, ২০২০

আশিক মাহমুদঃ- আগামী বুধবার থেকেই রাজশাহীতে করোনাভাইরাস সংক্রমিত কোভিড-১৯ শনাক্তকরণ পরীক্ষা শুরু হবে। সোমবার দুপুরে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ (রামেক) হাসপাতালের সম্মেলনকক্ষে সংবাদ সম্মেলন করে এ তথ্য জানিয়েছেন করোনা চিকিৎসা টিমের প্রধান ডা. আজিজুল হক আজাদ। তিনি জানান, করোনাভাইরাস সংক্রমিত কোভিড-১৯ রোগ শনাক্তে রামেকের ভাইরোলজি বিভাগের প্রধান প্রফেসর ডা. সাবেরা গুলনেহারকে ল্যাবের প্রধান করে চিকিৎসক, নার্সসহ ৩০ সদস্যের একটি টেকনিক্যাল টিম গঠন করা হয়েছে। তাদের অনলাইনে ট্রেনিং চলছে। এছাড়া ল্যাব স্থাপনের জন্য যেসব টেকনিশিয়ান ও প্রকৌশলী ঢাকা থেকে আসবেন তারাও হাতেকলমে প্রশিক্ষণ দেবেন। সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়, ল্যাবে প্রতিদিন গড়ে ৬-৭ জন রোগির নমুনা পরীক্ষা সম্ভব হবে। প্রতিটি রিপোর্ট তৈরি করতে সময় লাগবে ৮ থেকে ১২ ঘন্টা। রামেক হাসপাতালের চিকিৎসক ও নার্সদের সুরক্ষার জন্য পর্যাপ্ত পিপিই সরবরাহ করা হয়েছে। করোনাভাইরাস প্রতিরোধ ও চিকিৎসার জন্য অবজারভেশন ওয়ার্ডও গঠন করা হয়েছে। সেই ওয়ার্ড তত্ত্বাবধানের জন্য ডা. আজিজুল হক আজাদের নেতৃত্বে একটি ইউনিট গঠন করা হয়েছে। বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকেরা সবাই মিলে বসে কর্মপন্থা গ্রহণ করা হয়েছে এবং সে অনুসারে সম্মিলিতভাবে কাজ করা হচ্ছে। সংবাদ সম্মেলনে রামেক হাসপাতালের পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল জামিলুর রহমান জানান, ইমারজেন্সি ও আউটডোরে আসা হাঁচি, কাশি ও সর্দি নিয়ে আসা রোগীদের আলাদা করা হচ্ছে। করোনার উপসর্গ ছাড়া শ্বাসকষ্টসহ সর্দি-জ্বরের রোগী হলে তাদেরকে ৩৯ ও ৪০ নম্বর ওয়ার্ডে ভর্তি হচ্ছে। আর করোনা রোগীদের চিকিৎসার জন্য বার্ণ ও প্লাস্টিক সার্জারী ওয়ার্ড ৩১ মার্চের মধ্যে খালি করা হবে। পরীক্ষার পর করোনা আক্রান্ত রোগী নিশ্চিত হলে তাদের সেখানে পাঠানো হবে। জটিল রোগীদের জন্য সেখানে আইসিইউ-এর ব্যবস্থাও রয়েছে। সংবাদ সম্মেলনে রামেক হাসপাতালের উপপরিচালক সাইফুল ফেরদৌস, রামেকের অধ্যক্ষ ডা. নওসাদ আলী, রামেক হাসপাতালের মেডিসিন বিভাগের প্রধান অধ্যাপক ডা. খলিলুর রহমান, রামেকের সার্জারি বিভাগের অধ্যাপক ডা. হাবিবুল্লা সরকার প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

সবার সাথে শেয়ার করুন

অন্যান্য সংবাদ পড়ুন

tv 21

  • এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি।
  • © সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার ‘ভোরের জানালা ডট কম’ কর্তৃক সংরক্ষিত।
সাইট ডিজাইন এন্ড ডেভেলপ মেহেদী হাসান রিয়াদ - 01760-955268
error: এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।