ভোরের জানালা

জনগণের কল্যাণে অগ্রদূত

ডিভাইডার পার করিয়ে টাকা নেওয়া যুবক আটক

1 min read

নারায়ণগঞ্জের সিদ্ধিরগঞ্জে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের ডিভাইডার পার করে পথচারীদের কাছ থেকে টাকা আদায় করা যুবককে আটক করেছে হাইওয়ে পুলিশ।

আটক ২৬ বছরের রবিউল চট্টগ্রাম জেলার মিরসরাই থানা এলাকার আলতাব হোসেনের ছেলে।

রবিবার (১৭ মার্চ) রাতে তাকে আটক করা হয় বলে ভোরের জানালাকে নিশ্চিত করেছেন কাঁচপুর হাইওয়ে শিমরাইল ক্যাম্পের ইনচার্জ একেএম শরিফউদ্দিন।

তিনি বলেন, ‘আটক ব্যক্তি বেআইনিভাবে মহাসড়কে বিপদগ্রস্ত মানুষের কাছ থেকে পারাপার বাবদ অর্থ আদায় করেছিল। বিভিন্ন গণমাধ্যম কর্মী ও সাধারণ মানুষের মাধ্যমে আমরা বিষয়টি জানতে পেরে তাকে আটক করি। তার বিরুদ্ধে পরবর্তী আইনি ব্যবস্থা প্রক্রিয়াধীন রয়েছে।’

সিদ্ধিরগঞ্জের শিমরাইল মোড়ে মই দিয়ে পারাপারের এলাকায় অবস্থিত সড়ক ও জনপথ অধিদপ্তর (সওজ) আঞ্চলিক কার্যালয়। সেখানে দূরপাল্লার বাসগুলো যাত্রীদের নামিয়ে দেয়। গত বছরের মাঝামাঝি চার লেনের ঢাকামুখী সড়কের সিদ্ধিরগঞ্জের কাঁচপুর ব্রিজ থেকে কুয়েত প্লাজা এলাকা পর্যন্ত উঁচু বিভাজক দিয়ে দুই লেন বিভক্ত করে দেওয়া হয়। আঞ্চলিক যানবাহন চলাচলের জন্য আরও দুই লেন রাখা হয়। দূরপাল্লার লেন থেকে আঞ্চলিক লেনে যাত্রীদের চলাচলের জন্য সওজ কার্যালয়ের সামনে বিভাজকের একাংশ খোলা ছিল। দুই মাস ধরে তা বন্ধ রেখেছে সওজ কর্তৃপক্ষ। তবে দূরপাল্লার যানবাহনগুলো একই স্থানে যাত্রী নামিয়ে দেওয়া অব্যাহত রেখেছে।

ফলে উঁচু ওই বিভাজক পারাপারের উপায় নেই যাত্রীদের। এমন পরিস্থিতিতে ওই বিভাজকের দুই পাশে মই বসিয়ে পাঁচ টাকার বিনিময়ে যাত্রীদের পার করছিলেন দুই যুবক। যে ঘটনার ভিডিও আজ ফেসবুকে ছড়িয়ে পড়ে। সে ঘটনায় একজনকে আটক করল হাইওয়ে পুলিশ।

ভিডিও ভাইরালের পর জানতে চাইলে নারায়ণগঞ্জ সড়ক ও জনপথ অধিদপ্তরের নির্বাহী প্রকৌশলী শাহানা ফেরদৌস ভোরের জানালাকে বলেন, ‘আগেও একাধিকবার মই বসিয়ে যাত্রী পারাপার করা হয়েছিল। আমরা আনসার দিয়ে মইগুলো জব্দ করি। বিষয়টি নিয়ে হাইওয়ে পুলিশের সঙ্গে একাধিকবার কথা বলেছি। পরিবহনগুলোকে সার্ভিস লেন দিয়ে চলাচলে বাধ্য করা হলেও তারা শুনছে না।’

কাঁচপুর হাইওয়ে পুলিশের শিমরাইল ফাঁড়ির পরিদর্শক একেএম শরফুদ্দিন বলেন, ‘সওজের সঙ্গে কথা বলেছি। তারা জানিয়েছে সড়কের ওইটুকুর ডিভাইডারের অংশে তারকাঁটা দিয়ে দেওয়া হবে।’

একই কথা বললেন কাঁচপুর হাইওয়ে শিমরাইল ক্যাম্পের ইনচার্জ একেএম শরফুদ্দিন। বলেন, ‘সড়ক ও জনপথ অধিদপ্তরের সঙ্গে আলোচনা হয়েছে। তারা জানিয়েছে, যে অংশে যাত্রী নামিয়ে দেওয়ার পর পারাপার হচ্ছে, বিভাজকের সে অংশে তারকাঁটা দিয়ে দেওয়া হবে।’

Please follow and like us:
স্বত্ব © ২০২৪ ভোরের জানালা | Developed by VJ IT.
Translate »